সোমবার, ১৭ Jun ২০১৯, ০৬:৪৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
মমতাজউদদীনের মৃত্যুতে মন্ত্রিসভার শোক বুয়েট ছাত্রদলের ভিপি ছিলেন বালিশ মাসুদুল জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকারকে অবৈধ বলা হাস্যকর আত্মসাতের দেড় কোটি টাকায় স্ত্রীর নামে বাড়ি, আদালতে সিরাজ গরম তেলে স্বামীর শরীর ঝলসে দিল স্ত্রী ইয়াবাসহ গ্রেফতার পুলিশ কর্মকর্তা রিমান্ডে হানিফের বাসচাপায় প্রাণ গেল শিক্ষক-ছাত্রের আইসক্রিমে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে মেয়েকে হত্যা করলেন মা স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে গিয়ে চরম ভোগান্তি হজযাত্রীদের উপজেলা নির্বাচনের শেষ ধাপের ভোট মঙ্গলবার জামিন নামঞ্জুর, কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ ভুল করেই পাসপোর্ট রেখে যান পাইলট : আন্তঃমন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি বিহারে মস্তিষ্কের প্রদাহে ১০০ শিশুর মৃত্যু চোখ হারানো মিলনের পরিবারের বিরুদ্ধে পাল্টা তিন মামলা শেষ মুহূর্তে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন আ.লীগ প্রার্থী হজ এজেন্সির জন্য জরুরি বিজ্ঞপ্তি‌ জুলাই থেকে ই-পাসপোর্টের যুগে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে নেয়া হয়েছে ওসি মোয়াজ্জেমকে বাড়ির দরজা খোলা পেয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ
মাতবর হোটেলে সাহরি খেতে টাকা লাগে না

মাতবর হোটেলে সাহরি খেতে টাকা লাগে না

বাংলা৭১নিউজ,ডেস্ক: রমজান মাসজুড়ে রোজাদারদের বিনামূল্যে সাহরি খাওয়াচ্ছে বরিশালের গৌরনদীর মাতবর হোটেল অ্যান্ড রেস্ট্যুরেন্ট। বিষয়টি পুরো বরিশাল জুড়েই আলোচনার সৃষ্টি করেছে। এমন মহৎ উদ্যোগের জন্য ওই হোটেলের মালিক মো. আব্দুর রশিদ মাতবরের সবাই প্রসংশাও করছেন।

বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য আবদুল্লাহ আল সাইদের এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে বিষয়টি জানাজানি হয়। এখন বিষয়টি সবার মুখে মুখে।

অ্যাডভোকেট আবদুল্লাহ আল সাইদ বলেন, গত সোমবার (২৭ মে) দিনগত রাতে ঢাকা থেকে বরিশালের আসার সময় ফ্রি সাহরি খাওয়ানোর বিষয়টি বুঝতে পারি। নিজের কাছেই অজান্তে ভালো লেগে যায়। সেখান থেকেই মঙ্গলবার (২৮ মে) রাতে ফেসবুকে স্ট্যাটাসটি দেই।

পুরো অভিজ্ঞতা তুলে ধরে আল সাইদ স্ট্যাটাসে লিখেছেন-
‘রোজার মধ্যে রাতের বাসে হাইওয়েতে যাতায়াত করা আমাদের জন্য খুব দুশ্চিন্তার বিষয় না হলেও মোটামুটি চিন্তার বিষয়। কারণ ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ের মতো আমাদের ঢাকা-বরিশাল হাইওয়েতে খুব ভালো মানের খাবার হোটেল পাওয়া যায় না। তাই সাহরি খাওয়ার জন্য আমাদের ভরসা করতে হয় রাস্তার পাশের মোটামুটি মানের খাবার হোটেলের ওপর। এ ভরসার মধ্যে দুইটি চিন্তার বিষয় হলো খাবারের মান এবং খাবারের অতিরিক্ত মূল্য। রাত জেগে হোটেল খোলা রাখার কারণে খাবারের মূল্য অনেক সময় হোটেল মালিকরা দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করে থাকেন। যাত্রীরা মোটামুটি বাধ্য থাকেন হোটেল মালিকের নির্ধারিত মূল্যে খাবার গ্রহণ করার জন্য। কারণ যাত্রীদের হাতে কোনো বিকল্প উপায় থাকে না। যাত্রীদের এ অসহায়ত্বের সম্পূর্ণ সুযোগ নেন হোটেল মালিকরা। তার মধ্যে পুরাতন পচা-বাসি খাবারতো আছেই। আমরা যারা রোজার মধ্যে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার জন্য রাতের বাসে যাতায়াত করি তারা এই বিষয়গুলোতে মোটামুটি অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি।

কিছুদিন আগে আমি একটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পর সোমবার রাত ৯টায় সাকুরা পরিবহনের একটি বাসে ঢাকা থেকে বরিশালের উদ্দেশ্যে রওনা করি। বাসে উঠে সুপারভাইজারের সঙ্গে সাহরি খাওয়ার বিষয় নিয়ে কথা বললাম। সুপারভাইজার আমাকে আশ্বস্ত করলো রাত তিনটার দিকে যেখানে হোটেল পাওয়া যাবে সেখানে আমাদের সাহরি খাওয়ানোর জন্য বাস থামানো হবে। রাত তিনটায় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের গৌরনদী বাসস্ট্যান্ডে বাস থামলো। যে হোটেলের সামনে বাসটি থামলো ওই হোটেলের সামনে আরও ১০ থেকে ১২টি বাস থামানো ছিল। ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচলরত ভালো মানের অধিকাংশ বাসই ওই হোটেলের সামনে থামানো দেখতে পেলাম।

যাত্রীদের সাহরি খাওয়ার জন্য একসঙ্গে অনেকগুলো বাস ওই হোটেলটির সামনে থামায় হোটেলটিতে অনেক ভিড় হয়ে গেল। আমি সাহরি খাওয়ার জন্য হোটেলের খাবার টেবিলের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম এবং কিছুক্ষণ পরে একটি চেয়ার খালি হলে আমি ওই চেয়ারটিতে বসি। আমি খাবারের কোনো দাম জিজ্ঞেস না করে খাওয়া শুরু করলাম। কিন্তু আমার পাশে একজন যাত্রী হোটেল বয়কে দাম জিজ্ঞেস করতেই বয় উত্তর দিলো দাম লাগবে না, কী খাইবেন বলেন।

Matbor-Hotel

কথাটা শুনে তখনো বুঝতে পারিনি বিষয়টা কী। আমি খাওয়া শেষ করে বিল দেয়ার জন্য হোটেলের ম্যানেজারের কাছে যাই। তিনি আমাকে বিনয়ের সঙ্গে বললেন টাকা দেয়া লাগবে না। বিষয়টি বুঝতে পারলাম না। তাই আবার তাকে জিজ্ঞেস করলাম কেন টাকা দেয়া লাগবে না। তিনি আমাকে বললেন, বাবা বছরে ১১ মাস ব্যবসা করি, এক মাস আল্লাহ তায়ালার অশেষ কৃপা লাভের আশায় রোজাদার ব্যক্তিদের খেদমত করি।

আমি একটু অবাক হয়ে গেলাম এবং বিষয়টি ভালো করে বোঝার চেষ্টা করলাম। জানতে পারলাম তিনি হোটেলের ম্যানেজার নন, তিনিই হোটেলের মালিক মো. আব্দুর রশিদ মাতবর। পুরো রমজান মাসজুড়ে তিনি সাহরি খাওয়ানোর পর কারও কাছ থেকে টাকা নেন না। আমার মতো কৌতুহলী হয়ে অনেক যাত্রী তার কাছ থেকে বিষয়টা বোঝার চেষ্টা করলেন। অনেক যাত্রী অবাক হয়ে হোটেলের মালিকের দিকে তাকিয়ে রইলেন।

হোটেলের বয়রাও অনেক আন্তরিক। যে কোনো একজন খাবারের জন্য চেয়ারে বসার সঙ্গে সঙ্গে তারা জিজ্ঞেস করেন- কী খাবেন মাছ না মাংস। মাছ হলে কোন মাছ, আর মাংস হলে কিসের মাংস! যেখানে বাংলাদেশে রমজান মাসে ব্যবসায়ীরা পণ্য মজুদ করে মূল্য বাড়ায়, ভেজাল পচা-বাসি এবং অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রির দায়ে ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে নামি-দামি খাবার হোটেলগুলোতে জরিমানা করেন, সেখানে গৌরনদী বাসস্ট্যান্ডের মাতবর হোটেল অ্যান্ড রেস্ট্যুরেন্টের মালিক মো. আব্দুর রশিদ মাতবর স্রোতের বিপরীতের একজন মানুষ। যে মানুষ পুরো রমজান মাসে মহান সৃষ্টিকর্তার নৈকট্য লাভের আশায় রোজাদার ব্যক্তিদের খেদমত করার জন্য এই ব্যবস্থা নিতে পারেন, তিনি অবশ্যই কোনো সময় পচা-বাসি খাবার বিক্রি করতে পারেন না। আব্দুর রশিদ মাতবরের কাছ থেকে শিক্ষাগ্রহণ করুন আমাদের দেশের বড় বড় ব্যবসায়ীরা।’

যোগাযোগ করলে মাতবর হোটেল অ্যান্ড রেস্ট্যুরেন্টের মালিক মো. আব্দুর রশিদ মাতবর বলেন, বছরের ১১ মাস ব্যবসা করে পরিবার-পরিজন নিয়ে মহান সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় খুবই ভালো আছি। নিজের আত্মতৃপ্তির জন্য প্রথমবারের মতো রমজানে বিনামূল্যে সাহরি খাওয়ানোর আয়োজন করেছি। শুরুর দিকে ৮০-১০০ জনকে বিনামূল্যে সাহরি খাওয়ালেও এখন এর সংখ্যা দেড়শর বেশি গিয়ে ছাড়ায়। এতোটুকু সেবা করতে পারাটা সৌভাগ্যের বলেই মনে করি।

বাংলা৭১নিউজ/এমএম

Please Share This Post in Your Social Media


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ – ২০১৯ । জেডএস মাল্টিমিডিয়া লিমেটেড এর একটি প্রতিষ্ঠান