বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
ইন্দোনেশিয়ার গণমাধ্যমে পেন্সিলে আঁকা খালেদা জিয়ার কারাজীবন ‘যারা দলের সিদ্ধান্তের বাইরে শপথ নেয়, তারা জাতীয়তাবাদী আদর্শের নয়’ আনিস খাদেম হত্যায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড শ্রীলঙ্কায় ড্রোন নিষিদ্ধ সুপ্রভাতের মালিক, কন্ডাকটর হেলপারের বিরুদ্ধে চার্জশিট শ্রীলঙ্কার মতো বাংলাদেশেও জঙ্গি হামলার চেষ্টা চলছে ছেঁড়া তার জুড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু স্টার সিনেপ্লেক্সে সিনেমার অগ্রিম টিকেট কিনতে মানুষের ঢল ড. কামালের ব্যাংক হিসাব তলব কলেরা হাসপাতালে ধারণ ক্ষমতার তিনগুণ বেশি রোগী হয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা থাকবে, না হয় আমি থাকব মোবাইল টাওয়ারের ক্ষতিকর দিক জানতে চেয়েছেন আদালত চীনের ‘টপ সিক্রেট’ মিসাইলের তথ্য ফাঁস জুমার খুতবায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রচার করবেন:প্রধানমন্ত্রী সাত কলেজের আন্দোলন: সোমবার পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি শ্রীলংকায় ফের বিস্ফোরণ পোলার্ডকে ছাড়াই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিশ্বকাপ দল শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর এমপি হিসাবে শপথ নিচ্ছেন বিএনপি নেতা জাহিদ সড়ক দুর্ঘটনায় শাস্তি কমাতে সারা দেশে ধর্মঘটের ছক
ফেসবুকে ‘দ্য এন্ড’ লিখে আত্মহত্যা করলেন শিক্ষিকা

ফেসবুকে ‘দ্য এন্ড’ লিখে আত্মহত্যা করলেন শিক্ষিকা

বাংলা৭১নিউজ,ডেস্ক: ফেসবুকে ‘দ্য এন্ড’ লিখে আত্মহত্যা করলেন এক শিক্ষিকা। শুক্রবার (১২ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭ টা ৩৪ মিনিটে ফেসবুকে লিখেছিলেন ‘The end’। এরপর আর কোনো পোস্ট করেননি তিনি।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বেলদা থানার দেউলী মধ্যপাড়া এলাকার। তৃপ্তি চট্টোপাধ্যায় (৩৯) নামের ওই আত্মহননকারী বেলদা হিমাংশু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন।

তার স্বামী সুমিত চট্টোপাধ্যায় বেলদা ২ অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে বিভিন্ন ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন তৃপ্তি। নিঃসন্তান ছিলেন ওই দম্পতি।

স্থানীয়দের বক্তব্যের সঙ্গে মিল খুঁজে পেয়েছেন বেদলা থানা পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে মানসিক সমস্যাজনিত কারণেই তৃপ্তি আত্মহত্যা করেছেন বলে অনুমান করছেন তারা।

এ বিষয় তৃপ্তির স্বামী তৃণমূল নেতা সুমিত চট্টেপাধ্যায় জানান, ‘আত্মহত্যার রাতে তেমন কোনো সমস্যা চোখে পড়েনি আমার। প্রতিদিনের মতো খাবার খেয়ে শুয়ে পড়ি। ভোরে উঠে দেখি স্ত্রীর দেহ ঝুলছে।’

স্ত্রীর মানসিক অবস্থার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে তৃপ্তি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিল। বিনা কারণে কখনও রেগে যেত, আবার কাঁদত। গত ১২ এপ্রিল তৃপ্তি স্কুলে যায়নি। সারাদিন বাসায় ফেসবুকিংয়ে ব্যস্ত ছিল। আমি তার জন্য রান্না করেছিলাম, তা খেয়ে আমার প্রশংসাও করেছিল। ’

তৃপ্তির ফেসবুক ওয়ালে গিয়ে দেখা গেছে, স্বামীর রান্নার প্রশংসার একটি পোস্ট দেয়া রয়েছে।

এছাড়াও ১২ এপ্রিল আরও কয়েকটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন তৃপ্তি।

তার কানের সমস্যার কথা লিখেছেন। একটি পোস্টে লেখা রয়েছে, ‘আমাকে শান্তি দেয়ার কেউ নেই। তবে আমার স্বামীকে আমি ভালোবাসি’।

পুলিশ ইতিমধ্যে তৃপ্তির মৃতদেহ ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে। মানসিক অসুস্থতা ছাড়াও তৃপ্তির মৃত্যুর নেপথ্যে অন্য কোনও কারণ রয়েছে কি না, তদন্তকারীরা তা খতিয়ে দেখছেন।

বাংলা৭১নিউজ/এস.বি

Please Share This Post in Your Social Media


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ – ২০১৯ । জেডএস মাল্টিমিডিয়া লিমেটেড এর একটি প্রতিষ্ঠান