রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
স্বাধীনতা দিবসে বঙ্গভবনের আশেপাশের সড়কে যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা রাবিতে ডীনস্ এ্যাওয়ার্ড ২০১৯ প্রদান “নাটোর উত্তরা গণভবন” সংস্কার হচ্ছে রাসেল ঝড়ে হেরে গেল সাকিবরা পঞ্চগড়ে মেয়েদের সাইক্লিং ও ছেলেদের মিনি ম্যারাথন অনুষ্ঠিত ৪র্থ বারের মতো দারাজে অনলাইন বৈশাখী মেলা নেত্রকোনায় বিকল্প সড়ক অপসারণের দাবীতে মানববন্ধন হিলিতে আন্তর্জাাতিক যক্ষা দিবস পালিত শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে বাড়ি ফিরলেন শিক্ষকরা ভোট গ্রহণ শেষ, চলছে গণনা স্বল্প খরচে কিডনি প্রতিস্থাপন করছে বিএসএমএমইউ প্রথম দিনে ‘কেশরি’র ২১ কোটি! বিএসএফের গুলিতে এক বাংলাদেশি আহত, নিখোঁজ ২ সীমান্তে গোলাগুলিতে আরও এক ভারতীয় সেনা নিহত কাল ভয়াল ২৫ মার্চ, জাতীয় গণহত্যা দিবস তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা থাকছে না এ বছর থেকেই শাহজালালে ফের গুলিসহ আওয়ামী লীগ নেতা আটক ওয়াসিম হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল সিলেট পরিকল্পিতভাবে আগেই বাড়ানো হচ্ছে পণ্যমূল্য পেকুয়ায় জালভোট দেয়া নিয়ে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৪
কলাপাড়ায় স্লুইজ গেট দখলে রেখে মাছ শিকার; হুমকির মুখে রবিশষ্য চাষ

কলাপাড়ায় স্লুইজ গেট দখলে রেখে মাছ শিকার; হুমকির মুখে রবিশষ্য চাষ

বাংলা৭১নিউজ,পটুয়াখালী প্রতিনিধি: স্লুইজ গেটের মুখ খুলে মিস্টি পানি বের করে মাছ শিকার করায় হুমকির মুখে পড়েছে পটুয়াখালীর কলাপাড়ার চম্পাপুর ইউনিয়নের প্রায় দুই হাজার একর জমির রবিশষ্য চাষ।

উপজেলার পাটুয়া স্লুইজগেট দখলে রেখে প্রতি বছর রবি মৌসুমে স্থানীয় একটি চক্রের এমন জিম্মি দশায় শিকার ছয়টি গ্রামের সাধারন মানুষসহ কয়েক’শ কৃষক। স্থানীয়সহ ভূক্তোভোগী কৃষকরা জানান, উপজেলার চম্পাপুর ইউনিয়নের প্রায় দুই হাজার একর জমিতে রবি ফসল ও ইরি ধানের চাষ করছে কৃষকেরা। বর্তমানে প্রায় পানি শুন্য অবস্থায় রয়েছে আবাদি জমি সংলগ্ন সমস্ত খাল।

ফলে চালিতাবুনিয়া, বিনামকাটা, গোলবুনিয়া, কৃষ্ণপুর, মাছুয়াখালী, পাটুয়া গ্রামের কৃসকসহ সাধারন মানুষ পাটুয়া সুইজ গেট খালটির উপর নির্ভরশীল হয়ে পরে।

সাবেক ইউপি সদস্য কামাল মৃধা বলেন, রবিশষ্য মৌসুমে স্থানীয় সোহরাব গাজী, মন্টু গাজী, ট্রলার মালিক আলম মৃধা ও হানিফ মৃধা গংরা মাছ শিকারের নামে পাঁচ দিন ধরে মিষ্টি পানি সুইজ গেট দিয়ে বের করে দিচ্ছে। এতে ওইসব গ্রামের কৃষি কাজসহ সাধারন গৃহস্থলী কাজ ব্যহত হয়ে পড়েছে। শুক্ররার সকালে সোহরাব গাজীসহ অন্যান্যদের পানি নামাতে নিষেধ করি। কিন্তু তারা কারো কথায় কর্নপাত করেনি।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ট্রলার মালিক আলম মৃধা জানান, ট্রলার চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরী হওয়ায় সুইজ গেট খুলে কচুরীপানা বের করে দেয়া হয়েছে। স্লুইজ গেটের কপাট ফাঁকা থাকায় পানি বের হয়ে যায় বলে তিনি দাবী করেন। সোহরাব গাজী জানান, পানি নামানোর সময় মাছ ধরা হয়েছে। মাছ ধরা শেষে হওয়ার পর জোয়ারের সময় আবার খালে পানি প্রবেশ করানো হয়েছে। তবে প্রবেশ করানো ওই পানি লবনাক্ত ছিলনা বলে দাবী করেন তিনি।

কৃষক মাসুদ চৌকিদার জানান, বর্তমানে গরু মহিষের পানি খাওয়ার মত অবস্থা নাই। খালে পানি না থাকায় গৃহাস্থলী কাজ ব্যহত হচ্ছে। নদীতে লবনাক্ত পানি। এ পানি খালে প্রবেশ করালে শতশত একর জমির ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

চম্পাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিন্টু তালুকদার স্লুইজ জানান, অভিযুক্তরা তাদের ইচ্ছামত স্লুইজ গেট খুলে পানি উঠা নামা করায়। এতে ক্ষতির মুখে পড়ছে কৃষকরা । এটা চরম অন্যায়। আমি এ বিষয় দ্রুত কার্যকরি পদক্ষেপ নিচ্ছি।

বাংলা৭১নিউজ/এডি

Please Share This Post in Your Social Media


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ – ২০১৯ । জেডএস মাল্টিমিডিয়া লিমেটেড এর একটি প্রতিষ্ঠান